• Home
  • Articles
  • Islamic :: Bangla
  • নবীর ছবি, কোরাণ পোড়ানো, বাক্‌স্বাধীনতা ও সাম্প্রদায়ীক সম্প্রীতি

সাবধান! যুদ্ধাপরাধী-বিচার!!

সাবধান ! যুদ্ধাপরাধী-বিচার !!

০৬ মার্চ ৪২ মুক্তিসন (২০১২)

যুদ্ধাপরাধী বিচারের বিপক্ষে জামাত কোমর বেঁধে উঠে পড়ে লেগেছে কারণ এ বিচার তাদের অস্ত্বিত্বের প্রশ্ন.. তারা প্রাণপনে মিথ্যাভাষণ, টাকা, মধ্যপ্রাচ্যের চাপ, দেশে বিদেশে ষড়যন্ত্র, মধ্যপ্রাচ্য আর ভারতের জামাতি-মোল্লাদের বিবৃতি, সন্ত্রাস আর আন্তর্জাতিক সমর্থনের দাবা খেলছে.. এদের আমরা ভালো করে চিনি.. তাঁদেরকেও আমরা ভালো করে চিনি যাঁরা বিচারের পক্ষে অক্লান্তভাবে কাজ করে যাচ্ছেন যেমন নির্মূল কমিটি, লন্ডনের ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইমস স্ট্রাটেজী ফোরাম ইত্যাদি.. এই অবস্থায় অত্যন্ত সংবেদনশীল, স্পর্শকাতর ও গুরুত্বপূর্ণ একটা কথা কানে এল.. যাঁরা যুদ্ধাপরাধী-বিচারের পক্ষে কাজ করছেন লিখছেন কথা বলছেন তাঁদের মধ্যে নাকি কিছু জামাতের চর ঢুকে পড়েছে.. তাঁদের নাকি সনাক্তও করা গেছে, তাঁরা নাকি সমর্থক সেজে ভেতর থেকে এ বিচার ভন্ডুল করার চেষ্টা করছেন..

ভয়ানক খবর.. , জামাতের মত দুশ্চরিত্র ধর্ম-ডাকাতেরা এটা করবে সেটাই স্বাভাবিক.. কিছুদিন আগে জামাত কিছু বিদেশী রাজনীতিকদের মুখ থেকে ট্রাইবুনালের স্বচ্ছতা নিয়ে সন্দেহের কথা বের করতে পেরেছিল.. সম্প্রতি নির্মূল কমিটি'র নেতা শাহরিয়ার কবিরের ইউরোপ সফরে সেটাকে মোটামুটি পরাস্ত করা গেছে, দারুণ একটা কাজ হয়েছে.. এই সংকটে পরীক্ষিত চেনামুখের ভীড়ে ঘরের শত্রু বিভীষণের খবরটা কারো কারো মনে কিছুটা সংশয় সৃষ্টি করতে পারে কিন্তু আমার আশংকা অন্য জায়গায়.

জামাতের চর হিসেবে যে নামগুলো আমার কানে এসেছে তাঁদের একজনকে আমি বহুদিন থেকে চিনি, অন্যজন আমার ছোটভাইয়ের বাল্যবন্ধু.. বহু বছর ধরে নিজের সময় ব্যয় করে পকেটের পয়সায়খরচ করে তাঁদের জামাত-বিরোধী একাগ্রতা, কথাবার্তা ও কাজকর্ম এতটাই পরীক্ষিত যে তাঁদেরকে জামাতের চর বলা আর গান্ধীজি প্রতিবেশীর মুরগী চুরি করেছেন বলা একই কথা.. যুদ্ধাপরাধীর বিচার একটা জটিল ব্যাপার, - এতে কিছু মতভেদ হবেই.. মতভেদ হলেই “জামাতের চর” এ অপবাদের শিকার আমি নিজেও, তাই আমি ওই ভ্রান্তিটা ভালো করে জানি.. তাঁদের সাথেও হয়ত কিছু মতভেদ হয়েছে কিন্তু তাই বলে তাঁদেরকে একেবারে জামাতের চর বললে আমাদের জামাত-বিরোধী সংগ্রামটা দুর্বল হয়ে পড়ে.. হ্যা, তর্কের উর্ধে সুস্পস্ট কোনো প্রমাণ থাকলে সেটা সবাইকে দেখিয়ে সবাই যদি মনে করে তবে সে সিদ্ধান্ত নেয়া যেতে পারে বটে কিন্তু সেটা করার আগে অন্যের বিচার করতে গিয়ে নিজেকে এতটা ওপরে তুলবেন না যে পড়ে গেলে হাড় ভাঙ্গে.

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ যদি আমাকে একটা মাত্র শিক্ষা দিয়ে থাকে তবে তা হলো এই - "যদি মনেও হয় আপনার সহযোদ্ধা কোন ভুল করছে তবুও আপনি তাকে আঘাত করবেন না। কারণ তাতে শত্রু'র শক্তিই বাড়বে এবং আপনার শক্তি কমবে".

হাসান মাহমুদ

Print